বাকুর প্রেমে

বাকুর প্রেমে কে না পড়েনি, বড় বড় ব্যক্তিত্ব তার প্রেমে পাগলপ্রায়, সময় পাল্টেছে, প্রেমিক পাল্টেছে, প্রেম নিবেদনের ভঙ্গি পাল্টেছে, তবে প্রেমিক কুলে তার প্রতি ভালবাসায় ভাটা পড়েনি কোনদিন |
বাকুর প্রতি আকর্ষনের এক বড় কারন তার হাতের বানান চা, যেন অমৃত, শুধু ওটার টানেই দুনিয়ার সাথে লড়াই করা যায়, শুধু দু-বসন্ত সাথে থাকার বাসনা থেকে মোক্ষলাভের দ্বিতীয় কোন পথ নাই |

বাকুর প্রেমে পাগল পঞ্চাশোর্ধ ভ্লাদিমির ইলিচ্ উলনভ একদিন সাহস করে বুক ঠুকে লিখেই ফেললেন প্রেমপত্র, দিনটা ১৭ই মার্চ, ১৯২০ | পরে এপ্রিল মাস নাগাদ তিনি তার সাঙ্গপাঙ্গের মাধ্যমে প্রস্তাব পাঠালেন – বিবাহ সূত্রে আবদ্ধ হতে চান বাকুর সাথে, পরে শুভদিন দেখে হল বিয়ে, ভদ্রলোক জৌতুক হিসেবে পেলেন প্রায় ৪০০ টি চা বাগান | এরপর বন্ধু মহলে উলনভ মহাশয়ের কদর আরো বাড়ল, ক্লাবের সান্ধ্য আড্ডার নতুন সংযোজন বাকুর বানান চা, যা তুলনামুলক নতুন খোলা ক্লাবকে আলাদা মাত্রা দিল |

এরপর উলনভ মারা গেলে, এগিয়ে এলেন এক লৌহপুরুষ – জোসেফ ভিস্সারিওনোভিচ্ , কথা দিলেন বাকুর সাথে নিকা করে তাকে সামাজিক মর্যাদা দেবেন |

ওদিকে পৃথিবীর অন্য গোলার্ধে আ্যডল্ফ বলে একজন বানিয়েছেন তার সখের কেটলি, যার আবার গালভরা নাম রেখেছেন – জনতার কেটলি | কিন্তু মুশকিল একটাই – সে দেশে চা বাগান একটাও নেই | আ্যডল্ফ বাবু অগত্যা আই.জি. ফার্বেনকে দায়িত্ব দিলেন চা এর খোঁজ করতে, নাতো কেটলির সঠিক ব্যবহার যে বিঘ্নিত হচ্ছে | ফার্বেন অনেক খুঁজে এক্সনের থেকে কিছু গ্রিন টি জোগার করলেন, কিন্তু শুধু গ্রিন টি দিয়ে আর কদিন চলে ?

করব করব করে লাস্টে করেই ফেললেন, আ্যডল্ফ সোজা টেলিফোন করলেন জোসেফ কে, বললেন – শুনেছি তোমার ৪০০ এর ওপর চা বাগান, আর বৌদিও নাকি খুব ভালো চা বানান, তো মশাই আমাদের খাওয়াবেন কবে? জোসেফ আশ্বাস দিলেন – কাউকে পাঠান আমি মোলোতোভকে বলে রাখব ক্ষন | আ্যডল্ফ আর দেরী না করে রিভেনট্রপকে পাঠালেন মোলোতোভের সাথে দেখা করতে | রিভেনট্রপ গেলেন আর নিয়ে এলেন ৬৫ মিলিয়ন ব্যারেল চা | এসবের মাঝে যারা আগে শুধু গ্রিন টি বেচতেন, একটু একটু করে মশালা টি ও বেচতে লাগলেন |

এরপর আ্যডল্ফের ইচ্ছে হল আরো চা এবং সাথে বিস্কুট আর চানাচুর ও, ২২শে জুন ১৯৪১ জোসেফ বাবুর বাড়ি লোক পাঠালেন | শুধু একটা বড় ভুল করে ফেললেন, সবাই পাই পাই করে বলেছিলেন আগে বাকুকে অপহরন করতে তারপর বাকি কাজ, কিন্তু না, আ্যডল্ফ বাবুর ইচ্ছে আগে বিস্কুট চানাচুর খাব তারপরে চা, কিন্তু চা আর ওনার খাওয়া হলনা কোনদিন |

তবে বাকুর প্রেমে প্রথম পড়েছিলেন রবার্ট বাবু, তবে প্রেম আর বিয়ে অবধি গড়ায়নি | এই রবার্ট বাবুর মেজদা লাডউয়িং বাবু আবার চানা মটর বেচতেন উলনভ বাবুর সিনিয়র কে | আর এদের বড়দা আ্যলফ্রেড ছুরি কাঁচির ব্যবসায় এত পয়সা কামান, পরে ঠিক করেন বছর বছর সেই পয়সায় লোকজন কে মেডেল দিলে কেমন হয় |

বাকুর ওপর অনেক ঝড় গেছে, তবে আর বিয়ে করেনি, এখন একাই থাকে তার ৪০০ টা চা বাগান নিয়ে | প্রায় সর্বত্রই তার চা এর কদর, তবে তার চা কিন্তু জোসেফ বাবুর গ্রামের বাড়ি হয়েই মার্কেটে পৌঁছয় আজও |

পুনশ্চঃ পড়ার সময় যেগুলো মাথায় রাখবেন-

#) ভ্লাদিমির ইলিচ্ উলনভ = লেনিন
#) নতুন খোলা ক্লাব = বলশেভিক পার্টি
#) জোসেফ ভিস্সারিওনোভিচ্ = স্তালিন
#) আ্যডল্ফ বাবু = আ্যডল্ফ হিটলার
#) জনতার কেটলি = ভক্সয়াগেন গাড়ি
#) চা = পেট্রোলিয়াম / খনিজ তেল
#) বিস্কুট, চানাচুর = স্তালিনগ্রাদ
#) চা বাগান = তেলের খনি
#) গ্রীন টি = সিন্থেটিক পেট্রোল
#) এক্সন = মার্কিনী বহুজাতিক সংস্থা
#) আই.জি.ফারবেন = জার্মান সংস্থা
#) মোলোতোভ = স্তালিনের বিদেশ মন্ত্রী – ইয়াচেস্লাভ মোলোতোভ
#) রিভেনট্রপ = হিটলারের বিদেশ মন্ত্রী – জোকিম ভন রিভেনট্রপ
#) চানা মটর = আগ্নেয় অস্ত্র
#) বড়দা আ্যলফ্রেড = আ্যলফ্রেড নোবেল
#) উলনভ বাবুর সিনিয়র = রাশিয়ান জার সরকার
#) ছুরি কাঁচির ব্যবসায় এত পয়সা কামান = ডাইনামাইট বানিয়ে বেশ পয়সা করেন
#) মেডেল = নোবেল পুরস্কার
#) চা কিন্তু জোসেফ বাবুর গ্রামের বাড়ি হয়েই মার্কেটে পৌঁছয় = ক্যাস্পিয়ান সাগর স্থিত বাকু এর তেল জর্জিয়ার (স্তালিনের জন্ম জর্জিয়ায়, সেসময় তা ছিল সোভিয়েত রুশের অন্তর্গত) রাজধানী ৎবিলিসি হয়ে পৌঁছয় পশ্চিমের মার্কেটে ।

আর হ্যাঁ বাকু এখন স্বাধীন রাষ্ট্র আজেরবাইজানের রাজধানী ।

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s